• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ ইং
Mujib Borsho
Mujib Borsho
সালথায় হারিয়ে যাচ্ছে কামার শিল্প

মনির মোল্যা, সালথা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি:

হাতুড়ির টং টং শব্দে সকাল বেলা প্রতিবেশির ঘুম ভাংতো। সেখানে আজ নিঃশব্দ নিরবতা। গ্রামগঞ্জে হাট বাজারের কামার সম্প্রদায়ের অধিকাংশ সদস্যরা তাদের বংশগত পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় নিয়োজিত হচ্ছেন। তারপর ও জীবন জীবিকার তাগিদে ফরিদপুরের সালথা উপজেলার প্রত্যান্ত অঞ্চলের কিছু কিছু কামার পরিবার এখনো তাদের বাপ-দাদার এ পেশা আকড়ে ধরে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিটি মানুষের সংসারের নিত্য প্রয়োজনীয় দা, বটি, কুড়াল, কাচি, খোন্তা, টেঙ্গি, কোদালসহ নানা জিনিস তৈরি করে কামারেরা তাদের পরিবার পরিজনকে নিয়ে দিনাতিপাত করছেন।

বর্তমানে এ পেশার আয় দিয়ে সংসার চালাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে তাদের। এর মধ্যে অনেকেই পুর্ব পুরুষের পেশা বাদ দিয়ে অন্য পেশায় ঝুকে পড়েছেন। ক্ষুদ্র এ শিল্পের কাচামাল হিসাবে ব্যবহৃত লোহা ও কয়লার দাম অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গেছে কিন্তু তাদের তৈরি জিনিস পত্রের দাম বৃদ্ধি না হওয়ায় এই পেশা থেকে দিন দিন তারা সরে যাচ্ছেন।

উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে জানা যায়, ৮ টি ইউনিয়নের গ্রামে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা প্রায় ২ শতাধিক কামার পরিবার গুলো আজ ভাল নেই। সালথা বাজারের জোৎস্না কর্মকার জানান, বর্তমানে লোহার দাম বেশি সে জন্য জিনিসপত্র তৈরি করে বাজারে বিক্রি করতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। ফুলবাড়িয়া বাজারের খোকন কর্মকার বলেন, পাথর কয়লার দাম বেশি এবং কাঠ কয়লা না পাওয়ার কারনে চাহিদা থাকা সত্বেও আমরা জিনিসপত্র তৈরি করতে পারছি না।

বিভিন্ন এলাকার কামার পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা হতদরিদ্র ও অনেকেই ভুমিহীন। অনেকের বসবাসের ভিটামাটি ছাড়া তাদের তেমন কোন জায়গা জমি নেই। তবে প্রয়োজনীয় পূজি না থাকায় ও উপকরণ সমূহ সঠিক ভাবে না পাওয়ায় তাদের এই দূরবস্থার মূল কারণ হিসাবে দেখছেন স্থানীয় সুধী মহল। সে কারণেই কামার শিল্প দিন দিন বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

ডিসেম্বর ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« নভেম্বর  
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।