• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং
Mujib Borsho
Mujib Borsho
দিনাজপুরে প্রতিবন্ধী ভাতা ও গরু বিক্রির টাকা ত্রাণ তহবিলে দিলেন মন্টু চন্দ্র রায়
সহায়তা করতে হলে ধনী, শিল্পপতি কিংবা সম্পদশালী হওয়ার প্রয়োজন নেই। ধনী, গরিব, অস্বচ্ছল কিংবা প্রতিবন্ধী যে কেউ প্রয়োজনে সংকটময় সময়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারেন।সহায়তা করতে মানুষের শুধু প্রয়োজন মন ও মানসিকতার। আর এই চরম সত্য কথাটি প্রমাণ করলেন দিনাজপুরের খানসামার শারীরিক প্রতিবন্ধী মন্টু চন্দ্র রায়।
তিনি দেশে বর্তমানে করোনা প্রাদুর্ভাবে সংকটময় সময়ে তিন মাসের প্রতিবন্ধী ভাতা এবং একটি ছোট গরু বিক্রি করে ত্রাণ তহবিলে দিলেন সাড়ে ১০ হাজার টাকা।
মন্টু চন্দ্র রায় খানসামা উপজেলার গোয়ালডিহি ইউপির নলবাড়ী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি পেশায় একজন সাইকেল মেকার।
শুক্রবার (৮ মে)  বিকেলে করোনায় কর্মহীন ও প্রতিবন্ধীদের সহায়তার জন্য তিন মাসের প্রতিবন্ধী ভাতার জমানো ২৪০০ টাকা ও একটি ছোট গরু বিক্রির টাকাসহ সাড়ে ১০ হাজার টাকা ইউএনও আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলামের হাতে তুলে দেন প্রতিবন্ধী মন্টু।
প্রতিবন্ধী মন্টু রায় বলেন, আমি খুব গরিব মানুষ। প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা ও বাজারে সাইকেলের মেকারি করে যা আসে তা দিয়েই সংসার চালাই। এমতাবস্থায় করোনাভাইরাসের কারণে বাড়ির বাইরে বের না হওয়ার কারণে অনেকে করুণ দিন পার করছেন।
তিনি আরো বলেন, টিভি ও পত্রিকায় করোনায় আমার মত শ্রমজীবী মানুষদের পাশে বিত্তবানদের এগিয়ে আসার সংবাদ দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে সরকার থেকে পাওয়া তিন মাসের প্রতিবন্ধী ভাতার টাকা ও বাড়ির ছোট একটি গরু বিক্রি করে সাড়ে ১০ হাজার টাকা উপজেলা ত্রাণ তহবিলে দিয়েছি।
অনেকের কাছে শুনেছি ইউএনও বিত্তবানদের কাছে সহযোগিতা নিয়ে কর্মহীন ব্যক্তিদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছেন। তাই আমার পক্ষ থেকে করোনায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সামান্য সহযোগিতা করলাম।
এ বিষয়ে ইউএনও আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম বলেন, ত্রাণ তহবিলে টাকা দান করে মহানুভবতার পরিচয় দিয়েছেন প্রতিবন্ধী মন্টু রায়। তার এ দান অনেককে অনুপ্রাণিত করবে। শারীরিক প্রতিবন্ধী হয়েও তিনি যে কাজটি করেছেন তা বাকী সবার জন্য অনুকরণীয়।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

ফেব্রুয়ারি ২০২৩
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« জানুয়ারি  
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।