• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৮শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১২ই জুলাই, ২০২৪ ইং
আলফাডাঙ্গায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ’র বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ:সাময়িক বরখাস্ত

আলমগীর কবির ,আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধিঃ

অর্থ কেলেঙ্কারী,অসুস্থ না হয়ে চিকিৎসা জনিত ছুটি ভোগ করা ও নিজ
ক্ষমতা বলে নিজের প্রতিষ্ঠানে ছেলেকে সিকিউরিটি গার্ডে নিয়োগের চেষ্টা অসুস্থ না হয়ে চিকিৎসা জনিত ছুটি ভোগ করাসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার শিয়ালদী আদর্শ আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো.আনিচুর রহমানের বিরুদ্ধে। অভিযোগে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির সভায় সাময়িক বরখাস্ত রয়েছেন তিনি।
অনিয়মের ঘটনায় বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর পহেলা জুন লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি সানোয়ার আহমেদ।
লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০২৩ সালের ২৬ জুন উক্ত প্রতিষ্ঠানের সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগকে কেন্দ্র করে তৎকালীন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আনিচুর রহমান অনিয়ম করে নিজ ছেলেকে নিয়োগের চেষ্টাসহ সুনির্দিষ্ট ৫টি অভিযোগসহ ২০২৩ সালের ১১ ডিসেম্বও গর্ভনিং বডির মিটিংয়ে গৃহিত সিধান্ত মোতাবেক ১০ দিনের সময় দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়। বেধে দেওয়া সময়ের মধ্য নোটিশের জবাব না দিয়ে পরবর্তীতে দুই ধাপে ২৮ দিনের চিকিৎসা জনিত ছুটির আবেদন করেন এবং অফিস থেকে দপ্তরিক অনেক ফাইল নিয়ে নিজ জিম্মায় বাড়িতে রেখে ব্যক্তিগত কাজের মধ্যে সময় পার করেন।
২০২৪ সালের জানুয়ারী মাসে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সিধান্ত মোতাবেক প্রতিষ্ঠানের উপাধ্যক্ষ সিদ্দিকুর রহমান খানকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব দিয়ে অফিসের কার্যক্রম চলমান রাখেন। সাবেক অধ্যক্ষর ২১ দিনের ছুটি মঞ্জুর করিয়া ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে দপ্তর বুঝাইয়া দেওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন কমিটি।
সাবেক অধ্যক্ষ আনিচুর রহমান ১৪ জানুয়ারী ২০২৪ পর্যন্ত অসুস্থ না থেকেও চাতুরতা ও মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে রেজিষ্ট্রার ডাক্তারের ভূয়া চিকিৎসা পরমর্শ মোতাবেক ছুটি নেন।
মাদ্রাসা পরিচানলা কমিটি ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি তদন্ত পূর্বক ৫ দিনের সময় দিয়ে মাদ্রসায় যোগদান করার জন্য নির্দেশ প্রদান করার পরেও তিনি যোগদান করেন নি। বরং ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩ সালে আবারও মেডিকেল ছুটি চেয়ে আবেদন করেন। এসময়ের মধ্যে তার চাকুরীর মেয়াদ উর্ত্তীণ হওয়ায় তিনি ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ সালে অবসরে চলে যান।
সাবেক অধ্যক্ষ দপ্তরিক কাগজপত্র ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষর নিকট বুঝিয়া না দেওয়ায় আলফাডাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার গত ৭ মার্চ ২০২৪ সালে লিখিত স্বাক্ষতির নোর্টিশে মাদ্রাসার দাপ্তরিক কার্য্য নথিপত্র, ব্যাংক চেক, জমার বহি, এফডিআর স্লিপ ও আর্থিক একাডেমিক সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র সিজার লিষ্ট করে বুঝে দেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। কিন্ত সাবেক অধ্যক্ষ আনিচুর রহমান শিক্ষা অফিসারের নির্দেশ উপেক্ষা করে কোনো কাগজপত্র বুঝে দেননি বলে অভিযোগ রয়েছে। অনিয়মের ঘটনায় বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যান বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য আলফাডাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বলেন। এ নিয়ে সাবেক অধ্যক্ষ আনিচুর রহমান জানান, আমি সরকারি বিধি মোতাবেক ছুটি নিয়ে অবসরে গিয়েছি। আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে সেটা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মোজ্জামেল হক বলেন, সাবেক অধ্যক্ষকে উক্ত প্রতিষ্ঠানের কাগজপত্র বুঝিয়া দেওয়ার জন্য নির্দেশ প্রদান করার পরেও বুঝিয়া দেননি। বিষয়টি লিখিত ভাবে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরকে অবগত করেছি।
জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সারমীন ইয়াসমীন বলেন, ১০ জুন মাদ্রাসার সভাপতি, সাবেক অধ্যক্ষ ও বর্তমান অধ্যক্ষকে এনে শুনানি করেছি এবং ম্যাধমিক শিক্ষা সুপারভাইজারকে দায়িত্ব দিয়েছি উভায়কে নিয়ে সমাধান করতে।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

জুলাই ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« জুন    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।