• ঢাকা
  • শনিবার, ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৬ই মার্চ, ২০২১ ইং

বেকু মেশিন দিয়ে মাটি ফেলে বসতি পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ্য

চরভদ্রাসনে ১৫ বসতি পরিবার উচ্ছেদের চেষ্টা করছে এক প্রভাবশালী

চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) প্রতিনিধি:-

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের মাথাভাঙ্গা গ্রামের ১৫টি বসতি পরিবার উচ্ছেদের জন্য আঃ কুদ্দুস কাজী (৫৫) এক প্রভাবশালী জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে চলেছে। আঃ কুদ্দুস কাজী পার্শ্ববতী সদরপুর উপজেলা সদরের ইউনুচ কাজীর ছেলে। উক্ত প্রভাবশালী ক্ষতিগ্রস্থ্য বসতভিটে সীমানার প্রায় ১০ একর মাঠী জমি শ্বশুরালয়ের দাবী করে গত একমাস ধরে দিনরাত বেকু মেশিন দিয়ে মাটি তুলে ডিবি বানিয়ে রাখছেন। পরে তা রাতের আঁধারে ট্রাকের পর ট্রাক লাগিয়ে মাটিগুলো বিক্রি করে চলেছে। বেকু দিয়ে মাটি খননের ফলে ইতিমধ্যে প্রায় ১০ বিঘাত জমি জুড়ে গভীর গর্তের পুকুরাকৃতি সৃষ্টি হয়েছে। একই সাথে আশপাশের বিভিন্ন বসতঘর সীমানায় উত্তোলিত মাটির স্তুপ চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। এতে অনেক দুস্থ্য পরিবারের ঘর মাটির চাপায় পড়ে বসবাস অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এছাড়া শুক্রবার উক্ত গ্রামের বাচ্চু মৃধা (৫০) ও মান্নান ফকির (৪৫) এদু’টি পরিবারের ভিটে অংশ থেকে জোর পূর্বক বেকু মেশিন দিয়ে মাটি খনন করা হয়েছে। ফলে পরিবার দু’টির বসত ঘর চরম হুকীর মধ্যে রয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবারগুলো জানায়, আশপাশের ১৫টি বসতি পরিবারের মাঝখানে রয়েছে প্রায় ২০ একর মাঠী জমি। এসব জমির মধ্যে সরকারি খাস জমিও আছে। কিন্ত প্রভাবশালী ইউনুচ কাজী ২০ একর জমির মালিকানা  তার শ্বশুর মরহুম দলিল উদ্দিন মিস্ত্রীর দাবী করে একমাস ধরে বেকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে অসহায় পরিবারের বসতি ঘর ঘেষে চালসম উচু করে মাটির ডিবি তৈরী করতে থাকে। এতে অসহায় পরিবারগুলো আগলা মাটির ডিবির নিচে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করতে থাকে। স্থানীয়রা এ কাজে বাঁধা দিলে প্রভাবশালী কুদ্দুস কাজী তাদের বিভিন্নভাবে হুমকী দিতে থাকে। ফলে ক্ষতিগ্রস্থরা কোনো উপায় না পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) এর কাছে ৫৪জন গ্রামবাসী স্বাক্ষরিত একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইমদাদুল হক তালুকদার সরেজমিনে পরিদর্শন করে নিষেধ করেন। তারপরও প্রভাবশালী ইউনুচ কাজী বহাল তবিয়তে বেকু মেশিন দিয়ে মাটি উত্তোলন করে ব্যবসা করে চলেছে বলে অভিযোগ।

শুক্রবার উক্ত এলাকার বাচ্চু মৃধা ও মান্নান ফকিরের বসতভিটে একাংশর মাটি বেকু মেশিন দিয়ে খনন করা হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবারের সাথে প্রভাবশালী ইউনুচ কাজীর চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। শুক্রবার দুপুরে সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবার ও প্রভাবশালী ইউনুচ কাজীর মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। বেকু মেশিন দিয়ে খননকৃত জমি সীমানার প্রায় ১৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে। এসব পরিবারের মধ্যে উক্ত এলাকার জব্বার ফকির, সিরাজ ফকির, শাহীন ফকির, তারা খান, রফিক খান, ফরিদ খান, আইয়ুব আলী বেপারী, কামরুল মৃধা, বাচ্চু মৃধা, খায়ের মৃধা, সোহাগ মৃধা, মান্নান ফকির, শেখ তারা ও শহীদ শেখ রয়েছে।

এ সময় বসতভিটে সীমানা বেকু মেশিন দিয়ে খনন করার কারন জানতে চাইলে প্রভাবশালী ইউনুচ কাজী এ প্রতিবেদককে জানায়, “ উক্ত বসতি পরিবারের গর্ত দু’টি আমি মাটি দিয়ে ভরে দেবো কিন্ত এলাকাবাসী যেন আমার ব্যবসায় কোনো বাঁধা না দেয়”। এ ব্যপারে উপজেলা সহকারী কশিনার ভুমির সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়”। তবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেসমিন সুলতানা জানান, “ বিষয়টি আমি অবগত হলাম শীগ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে”।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

মার্চ ২০২১
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« ফেব্রুয়ারি  
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।