• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১১ই আগস্ট, ২০২২ ইং
Mujib Borsho
Mujib Borsho
রমজানে অ্যাসিডিটি, আসুন জেনে নেই

ছবি প্রতিকী

হেলথ্ ডেস্ক :- চলছে সিয়াম সাধনার মাস। বিশ্বের কোথাও ১৬ ঘণ্টা, কোথাও ১৮ ঘণ্টা আবার কোথাও ২১ ঘণ্টা পর্যন্ত রোজা পালন করা হয়। রোজার সময় খুব সাধারণ একটি প্রশ্ন বেশি শোনা যায়। প্রশ্নটি হচ্ছে রোজা রাখলে অ্যাসিডিটির কোনও সমস্যা হবে কিনা কিংবা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগা রোগীর রোজা রাখলে কোনও অসুবিধা হবে কিনা? এখানে দুটো বিষয় খুব ভালো করে বুঝতে হবে আমাদের।

প্রথমে গ্যাস্ট্রিক রোগ সম্পর্কে প্রাথমিক একটা ধারণা দিচ্ছি। মানবদেহের পাকস্থলীতে প্রতিদিন প্রায় দেড় থেকে দুই লিটার হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড ক্ষরিত হয়, যার কাজ হচ্ছে পাকস্থলীতে খাবার পরিপাক  করতে সহায়তা করা। যদি কোনও কারণে পাকস্থলীতে এই হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড ক্ষরণ এর মাত্রা বেড়ে যায়, তাহলে পাকস্থলীর অভ্যন্তরীণ আবরণ তথা মিউকাস মেমব্রেনে প্রদাহ তৈরি হয় যাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় গ্যাসট্রাইটিস বলে। অতিরিক্ত খাবার খেলে কিংবা অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকলে কিংবা বেশি বেশি তৈলাক্ত খাবার খেলে পাকস্থলীতে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যায় এবং প্রদাহ হয় যাকে আমরা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করে থাকি।

গ্যাস্ট্রাইটিস এর উপসর্গ

পেটের উপরি অংশে ব্যথা হবে।
বুক জ্বালাপোড়া করবে।
খাবারের আগে-পরে পেট ব্যথা হতে পারে।
খাবারের সময় বুকে বাঁধ পড়ার মত অনুভব হবে।
ঢেঁকুর আসবে।
বমি বমি ভাব থাকবে, এবং খাবারের চাহিদা কমে যাবে।
অল্প খাবারেই পেট ভরে গেছে মনে হবে।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে একজন সুস্থ মানুষ রোজা রাখলে তার অ্যাসিডিটি হওয়ার কোনও সমস্যা আছে কিনা। যদি এক কথায় আমরা উত্তর দেই তাহলে বলতে হয় যে একজন সুস্থ মানুষ রোজা রাখলে তার অ্যাসিডিটি হওয়ার তেমন কোনও সম্ভাবনা নেই যদি সে ইফতারি ও সেহরিতে নিম্নোক্ত নিয়মগুলো মেনে চলে।

ইফতারির সময় যা করতে হবে

১। ইফতারিতে অতিরিক্ত তৈলাক্ত খাবার কিংবা তেলে ডুবিয়ে যেইসব খাবার তৈরি করা হয় যেমন পেঁয়াজু, আলুর চপ, বেগুনি,  চিকেন ফ্রাই, জিলাপি ইত্যাদি  যতটুকু সম্ভব পরিহার করতে হবে।

২। একসাথে অনেক বেশি খাবার খেয়ে ফেলা যাবে না। অনেকে ইফতারিতে বসেই খেতে খেতে ইসোফেগাস তথা গলবিল পর্যন্ত খেয়ে ফেলে, তা কখনোই করা যাবে না।

৩। ইফতারে ইসুপগুলের শরবত, ডাবের পানি, ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে আর শর্করা জাতীয় খাবার যথা খেজুর, পেয়ারা, ছোলা, সেমাই ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে।

৪। ইফতারি হতে হবে লাইট মিল কিংবা অল্প পরিমাণ খাবার। তারপর মাগরিবের নামাজ পড়ে রাতের খাবার খেয়ে নেওয়া ভালো। সম্ভব হলে তারাবির নামাজের আগেই খেয়ে নিতে হবে। তাহলে খাবারের পরে কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করে নামাজ পড়তে গেলে নামাজের সময় এক প্রকার ব্যায়াম হয়ে যাবে এবং সেটা খাবার পরিপাকের ক্ষেত্রে সহায়ক। সেই সাথে অ্যাসিডিটি হওয়ার ঝুঁকি কমে যাবে।

৫। অবশ্যই রোজার মাসে অ্যাসিডিটি থেকে বাঁচার জন্য ডিনার কিংবা সাহরি উভয়ক্ষেত্রে শোয়ার ১ ঘন্টা আগে খাবার শেষ করতে হবে এবং খেয়ে অবশ্যই কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করে তারপর ঘুমাতে হবে। অন্যথায় অ্যাসিডের ব্যাক ফ্লো হয়ে GERD এর মতো রোগ হতে পারে।

৬। টক জাতীয় ফলে যদিও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে, তথাপি টক জাতীয় ফলে সাইট্রিক অ্যাসিডও থাকে। তাই রোজার সময় টক ফল সাবধানতার সাথে খেতে হবে। ভালো হয়  রাতের খাবার শেষ করে খেলে।

৭। টমেটো ইফতারির সময় অনেকের প্রিয় খাবার। তবে টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে সাইট্রিক অ্যাসিড ও ম্যালিক অ্যাসিড থাকে এবং এটা পাকস্থলীতে ইরিটেশন করে। তাই টমেটো বেশি পরিমাণে না খাওয়াই ভালো।

৮। ঝাল খাবার পাকস্থলীতে অ্যাসিডিটির পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। তাই কাঁচা মরিচ কিংবা অতিরিক্ত ঝাল খাবার পরিহার করে চলতে হবে।

৯। গরম খাবার যথা চা, কফি ইত্যাদি পাকস্থলীতে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড ক্ষরণের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। তাই রোজার সময় চা,  কফি ইত্যাদি পরিহার করে চলা উচিত।

সেহরির সময় যা করণীয়
ফজর নামাজের সময় হওয়ার আগ পর্যন্ত সেহরি করা যায়। একটু দেরিতে সেহরি করার স্বাস্থ্যগত উপকারিতা রয়েছে। এতে সেহরি শেষ করে ফজর নামাজের প্রস্তুতি নেওয়া যায়। নামাজ শেষ করে কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করা যেতে পারে। এটি খাবার পরিপাকে সহায়তা করে। যদি কেউ ফজরের সময় হওয়ার ১-২ ঘন্টা আগে সেহরি করে তাহলে সে সাধারণত খাওয়া শেষ করে ২ ঘন্টা বসে থাকে না। খাবার খেয়ে সাথে সাথে শুয়ে পরা অ্যাসিডিটির অন্যতম কারণ।

সেহরির খাবারেও এসব জিনিস পরিহার করা উচিত যা অ্যাসিডিটি বাড়ায়। যেমন  চর্বিজাতীয় খাবার, অতিরিক্ত তেলে ভাজা খাবার, চা কফি ইত্যাদি।

এবার আলোচনায় আসি, যাদের আগে থেকেই অ্যাসিডিটি কিংবা গ্যাস্ট্রিকের  সমস্যা রয়েছে, তাদের করণীয় কী?

মূলত যাদের অ্যাসিডিটির সমস্যা কিংবা গ্যাস্ট্রিক রোগ রয়েছে, তারা গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ খেতে পারেন চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী। তারা রোজা রাখতে পারবেন আর সাথে সাথে উপরের নিয়মগুলি মেনে চলতে হবে। গ্যাস্ট্রিকের কয়েক ধরনের ঔষধ রয়েছে, তার মধ্যে অ্যান্টাসিড কিংবা ল্যান্সোপ্রাজল ক্যাপসুল খাওয়া যেতে পারে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী। অ্যান্টাসিড প্লাস সিরাপ সন্ধ্যায় খাবারের পরে খাওয়া যায় আর ল্যান্সোপ্রাজল ক্যাপসুল ভোর রাত্রে খেলে উপকার পাওয়া যায়। ল্যান্সোপ্রাজল এর কার্যকারিতা দীর্ঘসময় থাকে।

মেডিসিন নেওয়ার পরেও যদি কারো রোজা রাখতে বেশি কষ্ট হয় অথবা যদি প্রচণ্ড বুকে ব্যথা ওঠে তাহলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে রোজা ভঙ্গ করার অবকাশ রয়েছে।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

আগষ্ট ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« জুলাই  
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।