• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জুলাই, ২০২৪ ইং
চরভদ্রাসনে সন্ত্রাসী হামলায় স্কুল ছাত্র গুরুতর আহত

চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) প্রতিনিধি
ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের ফাজেলখার ডাঙ্গী গ্রামের পান্নু মোল্যার ছেলে রায়হান মোল্যা বাবু (১৭) গত ১৭ অক্টোবর বিকেলে পার্শ্ববতী হাজীডাঙ্গী গ্রামের পদ্মার পারে ঘুরতে গিয়ে প্রতিপক্ষ বখাটেদের হাতে গুরুতর সন্ত্রাসী হামলার শিকার হওয়ার পর গত তিনদিন ধরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। স্থানীয় বখাটে মোতাহার মন্ডল (২৪), লিখন মন্ডল (২৫), মিঠুন মন্ডল (২২), শামিম মন্ডল (১৯), স্বপন মন্ডল (২৩), নজরুল মন্ডল (২৬), একেন মন্ডল (২৪) ও শামিম প্রামানিক (৩০) মিলে ফুটবল খেলার বিবাদের জ্বের ধরে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে উক্ত ছাত্রর হাতে পায়ে মুখে ও পিঠে গুরুতর জখম করা সহ ঘাড়ের হাড় ভেঙে দিয়েছে বলে জানা গেছে। আহত যুবক এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। এ ব্যপারে আহত ছাত্রর চাচা গিয়্াস উদ্দিন মোল্যা
বাদী হয়ে চরভদ্রাসন থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলা নং-০৩, তারিখ ১৬/১০/২২খ্রি.। বৃহস্পতিবার চরভদ্রাসন থানার অফিসার ইনচার্জ মিন্টু মন্ডল জানান, “ আসামীদের গ্রেফতারের জন্য আমরা জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি কিন্ত আসামীরা সবাই পলাতক রয়েছে বিধায় একনো কাউকে গ্রেফতার করা
সম্ভব হয় নাই”। জানা যায়, ঘটনার দিন বিকেলে স্কুল ছাত্র মোটরসাইকেল যোগে উপজেলা পদ্মা নদীর গোপালপুর ঘাট থেকে বাড়ী ফিরছিল। পার্শ্ববতী হাজীডাঙ্গী গ্রামের
কাসেম মন্ডলরে বাড়ীর সামনে পৌছলে প্রতিপক্ষ বখাটেরা তার মোটসাইকেলের গতি রোধ করে টেনে হিচড়ে পদ্মা পারে নিয়ে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে এলোপাথারী কুপাতে থাকে। এ সময় স্কুল ছাত্র জীবন বাঁচাতে দৌড়ে পালাতে চাইলে অন্য বখাটেদের হাতে থাকা লোহার রড দিয়ে আঘাতের পর আঘাত করতে থাকে। পরে
এলাকাবাসী ছুটে এসে বখাটেদের সন্ত্রাসী হামলার মধ্যে থেকে স্কুল ছাত্রকে রক্ষাকরে দ্রুত চরভদ্রাসন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। উক্ত হাসপাতালে তিনদিন
চিকিৎসাধীন থাকার পর বৃহস্পতিবার ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে বলেও জানা যায়।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

জুলাই ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« জুন    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।