• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ ইং
ফরিদপুরে অন্যের জমি দখল করে রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ

নিরঞ্জন মিত্র ( নিরু),ফরিদপুর ঃঃ-

ফরিদপুর সদর অন্তর্গত অম্বিকাপুর ইউনিয়নের ভাষানচর এলাকায় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শেখ আমিন এর বিরুদ্ধে অন্যের জমি জোর পূর্বক দখল করে নিজের বাড়ীতে যাওয়ার রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সদরের অম্বিকা পুর ইউনিয়নের উত্তর আলীপুর গ্রামের বাসিন্দা ভুক্তভোগী মোঃ কামাল মোল্লা তার পৈত্রিক সূত্রে জমির উপরে জোর করে একই ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শেখ আমিনের নেতৃত্বে অজ্ঞাত লোকজন দিয়ে রাতের আধারে রাস্তা নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া যায়।

ইউপি সদস্য শেখ আমিনের বাড়ী য়াওয়ার জন্য,কামাল মোল্লার জমির উপর দিয়ে পূর্ব ভাষানচর মেইন রাস্তা হতে ৫০০ ফিট দৈঘ্য, ৫ ফিট প্রস্থের ফ্লাট সলিং রাস্তা নির্মাণ করেছেন শেখ আমিন। ভুক্তভোগী কামাল মোল্লা জমির মালিকানা দাবী করার প্রতিবাদ করতে গেলে ইউপি সদস্য আমিন শেখের লোকজন বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদান করে। বিষয়টি কামাল মোল্লা অম্বিকা পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ চৌধুরী (বারী) কে অবগত করেন। চেয়ারম্যান সালিশের মাধ্যমে মিমাংসা করার চেষ্টা করলে, ইউপি সদস্য শেখ আমিন বসতে রাজি হয়নি। আমিন শেখের নিকট হতে একাধিক বার জমি উদ্ধারের চেষ্টা করা হলে, তার ক্ষমতার কাছে পরাজিত হই বলে জানান কামাল মোল্লা।

এই ব্যাপারে ভুক্তভোগী মোঃ কামাল মোল্লা বলেন, অম্বিকা পুর ইউনিয়নের ১৩৩ নং নসিবসাহী ভেলাবাজ মৌজার আর এস পৈত্রিক সুত্রে আমাদের এই জমির মালিকানা দাবী, যাহার আর এস দাগ নং -১৩৭,২০০,২০৩, আর. এস খতিয়ান নং- ৩৫,৩৬, মোট জমি ২৯ শতাংশ। আমার দাদা অখিলদ্দীন মোল্লার নামীয় আর এস খতিয়ানে রেকর্ড হয়। পরবর্তীতে এস. এ রেকর্ডের সময় শেখ নজির নামে ভুল ক্রমে এস. এ ১২৯ নং খতিয়ানে লিপিবদ্ধ হয়। আমরা এস. এ ভুল রেকর্ডের বিরুদ্ধে আদালতে দেওয়ানী মামলা দায়ের করি। যাহার মামলা নং- সদর মুনছিপ কোট ১২০/৯৮ এই মামলায় আমাদের পক্ষে রায় হয়। পরে আমাদের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট ৩৩৫১/২০০৮ নং আপীল মামলা দায়ের করে। অত্র হাই কোর্ট আপীল মামলায় আমাদের পক্ষে রায় দেন। এরপরে হাই কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে ১৬১২/১৪ নং আপীল দায়ের করে। দায়েরকৃত আপীল মামলা মহামান্য সুপ্রিম কোর্ট আমাদের নামে রায় দেন। অপরদিকে মামলা চলামান অবস্থায় পরবর্তীতে সেটেলমেন্ট কার্যক্রম শেষ হয়।বি. এস জরীপে ইউপি সদস্য আমিন শেখের কাকা আব্দুল রশিদ গং নামে তঞ্চকতা করে বি এস খতিয়ান তৈরী করে। যাহার হাল দাগ নং- ২১১,২১০,২৪৩, হাল খতিয়ান নং ৩৯,৭১,১২৬। বর্তমানে আমরা বি. এস রেকর্ডের বিরুদ্ধে বিজ্ঞ ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল আদালতে রেকর্ড সংসধনের মামলা দায়ের করি। যাহা মামলা নং- ১৬০৮/১৯ চলমান আছে।

এই ব্যাপারে অম্বিকা পুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ চৌধুরী (বারী) সাথে মুঠো ফোনে কথা হলে ঘটনার সত্যতা যাচাই করে বলেন, কামাল মোল্লার একটা শর্ত আছে বলে জানান। এবিষয়ে ইউপি সদস্য শেখ আমিন বলেন, কামাল মোল্লা শর্ত থাকলে সে নিবে, কিন্তু মামলা শেষ করে আসতে হবে। তিনি আরো বলেন, আমি কামাল মোল্লাকে কোন হুমকি প্রদান করি নাই। এবং রাস্তাটা রাতের অাঁধারে হয় নাই। স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় এল জি এস পি ২০১৯-২০২০ ইং অর্থবছরের মাধ্যমে ফ্লাট সলিং রাস্তা করা হয়েছে। এই রাস্তায় ২০ টি পরিবারের লোকজন চলাচল করে বলে জানান।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

মার্চ ২০২১
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« ফেব্রুয়ারি  
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।