• ঢাকা
  • সোমবার, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২০শে মে, ২০২৪ ইং
সরকারি নিষেধাজ্ঞা মানছে না গ্রামের জনগণ -উদ্বিগ্ন প্রশাসন

সরকারি নিষেধাজ্ঞা মানছে না গ্রামের জনগণ -উদ্বিগ্ন প্রশাসন

জিল্লুর রহমান রাসেল, ফরিদপুর প্রতিনিধি :
সরকারি কোন নিষেধাজ্ঞাই মানছে না গ্রামের জনগণ এ নিয়ে বেশ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।
আজ দুপুরে ফরিদপুর সদর উপজেলার ২ নং চরমাধবদিয়া ইউনিয়নের খলিল মন্ডলের হাট ও মমিন খার হাটে অভিযান কালে এ মন্তব্য করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ জাকির হোসেন।


পুলিশ ও সেনাবাহিনী সমন্বয়ে গঠিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের দুজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ জাকির হোসেন ও আফরোজ শাহিন খসরু।
সৈয়দ জাকির হোসেন বলেন, আজ শনিবার সাপ্তাহিক হাটের দিন খলিল মন্ডলের হাটে। কিন্তু বিশ্ব ব্যাপি করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা বিবেচনায় বাংলাদেশে সব ধরনের হাট বাজারের উপর এক কথায় জনসমাগমের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সরকার।এ নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে গ্রামের জনগণ তাদের হাটে বাজারে ভীড় জমিয়ে বেচা কেনায় ব্যস্ত হয়ে পড়ে, যুবক বৃদ্ধ সকলেই হাটে এসে কেনা বেচার পাশাপাশি এক জায়গায় জড়ো হয়ে করে গল্প গুজব। মানে না স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারদের কথাও।এজন্য প্রয়োজন হয় ভ্রাম্যমাণ আদালতের।এ সময় পুলিশ ও সেনাবাহিনীর সদস্যরা হাটের সকল ব্যবসায়িক কার্যক্রম বন্ধ করে দেন এবং সকলকে তাদের মালামাল নিয়ে ফেরত যেতে বাধ্য করেন।


সেনাবাহিনী লেফটেন্যান্ট শাহরিয়ার বলেন, আমরা শুরুতে সচেতনতার প্রচার করেছি কিন্তু তাতে কোন ফল হয়নি আমরা একদিক দিয়ে প্রচার করতাম আপনারা ঘরে থাকুন, অপ্রয়োজনে বাহিরে আসবেন না অন্য দিক দিয়ে ঠিকই তারা ঘুরে বেরাতো। এখন আমরা সিভিল সার্ভিস অফিসারদের নেতৃত্বে নিষেধাজ্ঞা অমান্য কারিদের শাস্তির আওতায় এনেছি এবং ফলও পাচ্ছি।শাস্তির ভয়ে জনগণ এখন আর খুব একটা বের হয় না।
এদিকে ২নং চরমাধবদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মীর্জা সাইফুল ইসলাম আজমকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, আমরা আমাদের দিক থেকে সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি যাতে আমাদের এ ইউনিয়নের কোথাও হাট বাজারের নামে জনসমাগম না হয়, করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা সম্পর্কে তাদের বলা হচ্ছে কিন্তু তারা বিষয়টি বুঝার চেষ্টা করে না আর এদের সাথে খারাপ ব্যবহারও করতে পারিনা।

প্রশাসন যদি নিয়মিত ভাবে আমাদের এই হাট দুটির দিকে নজর রাখে তাহলে আশা করি এই সমস্যা সমাধান হবে। আমি প্রশাসনকে অনুরোধ করবো তারা যেন করোনা ভাইরাসের প্রকোপ থাকা কালিন আমাদের এই হাট দুটিকে বন্ধ রাখতে সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।
এ সময় খলিল মন্ডলের হাটের ডাচ্ বাংলা এজেন্ট ব্যাংককে শনিবার খোলা রাখার কারণে ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয় এবং মোহাম্মাদপুর বাজার ও আদমপুর বাজারের ৫ টি দোকানকে ( নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা সত্ত্বেও খোলা রাখায়) ৫৫০০ টাকা (মোট ৬০০০ টাকা) জরিমানা করা হয়।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

মে ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« এপ্রিল    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।