• ঢাকা
  • বুধবার, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে নভেম্বর, ২০২০ ইং
করোনায় : ফরিদপুরের ফুল চাষিরা দিশেহারা

জিল্লুর রহমান রাসেল,স্টাফ রিপোর্টার :

করোনার কারণে বন্ধ রয়েছে ফুলের দোকান। তাই করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কপাল পুড়েছে ফুল চাষীদের। বিশেষ করে পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে আবাদী জমিতে ফুল চাষ করে এবার ধরা খেয়েছেন তারা।
সাম্প্রতিককালে ভাল মুনাফা থাকায় বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষের দিকে ঝুঁকে পড়ের অনেক চাষী। খাদ্য সামগ্রীর বদলে এই ফুল হয়ে ওঠে তাদের জন্য অর্থকরী ফসল। বিশেষ করে বিকল্প কর্মসংস্থানের সুযোগ হিসেবে অনেক যুবক ফুল চাষের দিকে এগিয়ে আসে।
ফরিদপুরে এসব চাষীদের হাত ধরেই বিভিন্ন প্রজাতির দেশী বিদেশী ফুল চাষ শুরু হয়। স্থানীয় পর্যায়ে ধার দেনা করে অনেক যুবক এতে জড়িয়ে পড়েন। গত দুই-তিন বছরে ভাল লাভ হওয়ায় এদের অনেকে অধিক আয়ের আশায় ফুল চাষের পরিধি বৃদ্ধি করেন।
ফরিদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলায় চলতি মৌসুমে প্রায় ১০ হেক্টরের বেশি জমিতে দেশী ও বিদেশী জনপ্রিয় ফুল জারবেরা, গ্লাডিওলাস, চন্দ্র মল্লিকা, গোল্ডেল স্টিক, রজনী গন্ধা, গোলাপসহ বিভিন্ন প্রকার ফুলের চাষ হয়েছে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ কার্তিক চন্দ্র চক্রবর্তী জানান, সারা বছরই ফুলের চাহিদা থাকে তবে চাষিরা বিভিন্ন দিবসকে সামনে রেখে ফুল চাষ বাড়িয়ে দেন। মার্চ ও এপ্রিল মাসে চাহিদা বেড়ে যায়। তিনি বলেন, ফুল চাষ করে অনেকে স্বাবলম্বি হয়ে উঠেছেন কিন্তু করোনার প্রভাবে এবার তারা ক্ষতির সম্মুখিন।
সদর উপজেলার আলীয়াবাদ ইউনিয়নের কয়েকটি ফুল বাগানে গিয়ে দেখা গেছে, ফুল বিক্রয় বা বাজারজাত করতে না পারায় গাছের ফুল গাছেই শুকিয়ে যাচ্ছে। আবার কিছু কিছু বাগানের ফুল ছিড়ে ফেলে দিচ্ছে।
ফরিদপুরের গদারধর ডাঙ্গী এলাকার জারবেরা ফুল চাষী আনোয়ার হোসেন জানান জানান, অনেক ফুল গাছ বাচিয়ে রাখার জন্য ফুল ছিড়ে ফেলে দিচ্ছি। মজুরের টাকা দিতে পারছিনা।
আরেক ফুল চাষী লিয়াকত হোসেন বলেন, গত দু’তিন বছর এই ফুল চাষে ভাল আয় হয়েছে। চলতি মৌসুমে তাই ঋণ করে আরো কয়েক প্রকার ফুলের আবাদ করেছি। কিন্ত এবার আমাদের কপাল পুড়েছে। এভাবে চলতে থাকলে আর্থিক ভাবে ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।
লিয়াকত বা আনোয়ারের মতো আরো অনেক ফুল চাষীদের এখন একই দুরাবস্থা। তারা এই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বিকল্প পথের সন্ধান করছেন। অনেকে এই ফুল চাষের অনিশ্চয়তা কাটিয়ে তুলতে ধান কিংবা সব্জির মতো অর্থকরী ফসল আবাদের কথাও চিন্তাভাবনা করছেন।
ফরিদপুরের গেরদা ইউনিয়নের খামারী আবু বাকের সাব্বিরের মতে, এসব জাতের ফুলের আবাদ না করে বড়জোড় সরিষা কিংবা সূর্যমুখী ফুলের আবাদ করা যেতে পারে। তাতে ক্ষেতের ফসল তুলে দিনশেষে ফেলে দিতে হবে না। সকলের একটাই কথা যে ক্ষতি হয়েছে তা কোন ভাবেই পোষানো সম্ভব নয়।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

নভেম্বর ২০২০
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« অক্টোবর  
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।