• ঢাকা
  • সোমবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ ইং
বাংলাদেশে করোনা চিকিৎসায় ১১হাজার স্বেচ্ছাসেবক চিকিৎসক দল

করোনা আক্রান্ত বা সন্দেহভাজনদের চিকিৎসা সেবা প্রদানে প্রায় ১১ হাজার স্বেচ্ছাসেবী চিকিৎসক দল তৈরি করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস নিয়ে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) নিয়মিত ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (এমইএস) হাবিবুর রহমান জানান, ‘করোনা সংক্রান্ত পরামর্শ ও স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার জন্য একটি স্বেচ্ছাসেবী চিকিৎসক দল তৈরি করা হয়েছে। প্রতি দিনই এই গ্রুপের সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় এই সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে এই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৮০২ জনে। তারা করোনা আক্রান্ত বা সন্দেহভাজনদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করবেন। আরও পড়ুন ঃ  ’বিশ্বস্বাস্হ্য সংস্থার নির্দেশনায় মাস্ক ব্যবহারের নিয়মাবলি

ইতোমধ্যে যারা কোয়ারেন্টাইনের মেয়াদ শেষ করেছেন তাদের সাথে শিষ্টাচার বহির্ভূত আচরণ থেকে বিরত থাকতে সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যারা কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ শেষ করেছেন তাদের দেহে আর সংক্রামণ নেই। তারা আপনার আমার মতোই একজন সাধারণ নাগরিক। তাদের সাধারণ জীবন যাপনের সুযোগ দিন।’
আগামী ২০ এপ্রিলের মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে মোট ২৮টি প্রতিষ্ঠানে করোনা টেস্ট ল্যাব স্থাপিত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ঢাকায় ৭টি ও ঢাকার বাইরে ৩টি প্রতিষ্ঠানে করোনাভাইরাসের টেস্টের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ৫ এপ্রিলের মধ্যে ঢাকার মধ্যে ৩ টি ও বাইরে ৩ টি এবং ২০ এপ্রিলের মধ্যে ধার ভেতরে ৪টি ও ঢাকার বাইরে আরও ৬টিসহ মোট ২৮টি স্থানে টেস্টিং ল্যাব স্থাপিত হবে। যেখানে করোনা রোগীদের টেস্ট করা যাবে।
কারো সর্দি, গলা ব্যথা, কফ, কাশি বা এ জাতীয় কোন অসুস্থতা দেখা দিলে সরাসরি হাসপাতালে না এসে স্বাস্থ্য বাতায়নের নম্বর ১৬২৬৩, ৩৩৩ নম্বর অথবা হটলাইন নম্বর ০১৯৪৪৩৩৩২২ বা ১০৬৫৫ নম্বরে ফোন করে পরামর্শ ও চিকিৎসা সেবা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, কারো মধ্যে করোনা সংক্রমন সন্দেহ হলে স্বাস্থ্যকর্মীরা বাসায় গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করে আনবে।
চিকিৎসকদের প্রতি নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, কেউ প্রাইভেট প্র্যাকটিস করা থেকে বিরত থাকবেন না। প্রয়োজনে পিপিই ব্যবহার করে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করবেন।
পিপিই’র বিষয়ে ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীদের আশ্বস্ত করে তিনি বলেন, প্রতিনিয়ত পিপিই সংগ্রহ কার্যক্রম চলছে। ইতোমধ্যে ৩ লাখ ৩৪ হাজার ২৭০টি পিপিই দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে সরবরাহ করা হয়েছে এবং পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। সূত্র:বাসস

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।