• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১২ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২৫শে এপ্রিল, ২০২৪ ইং
মুজিববর্ষ উপলক্ষে সংসদ চত্বরে বৃক্ষের চারা রোপন

ঢাকা, ২৪ আগস্ট, ২০২০ খ্রি.

​মুজিববর্ষ উপলক্ষে সংসদ ভবন চত্বরে আজ বৃক্ষের চারা রোপন করেন একাদশ জাতীয় সংসদের এ. কে আব্দুল মোমেন, মন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, শ. ম রেজাউল করিম, মন্ত্রী, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়, জাহিদ ফারুক, প্রতিমন্ত্রী, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, হাবিবুন নাহার, উপমন্ত্রী, পরিবশে, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়, ১৮ লালমনিরহাট-৩ এর সংসদ-সদস্য গোলাম মোহাম্মদ কাদের, ৩৮-বগুড়া-৩ এর সংসদ-সদস্য মোঃ নূরুল ইসলাম তালুকদার, ১০২ খুলনা-৪ এর সংসদ-সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী, ১১২ পটুয়াখালী-২ এর সংসদ-সদস্য আ, স, ম, ফিরোজ, ১২৪ বরিশাল-৬ এর সংসদ-সদস্য নাসরিন জাহান রতনা, ১৫৩ ময়মনসিংহ- ৮ এর সংসদ-সদস্য ফখরুল ইমাম, ১৬২ কিশোরগঞ্জ-১ এর সংসদ-সদস্য সৈয়দা জাকিয়া নুর, ১৬৩ কিশোরগঞ্জ-৩ এর সংসদ-সদস্য মোঃ মুজিবুল হক, ১৭৯ ঢাকা-৬ এর সংসদ-সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, ১৮৩ ঢাকা- ১০ এর সংসদ-সদস্য মোঃ শফউিল ইসলাম, ২৪৫ ব্রাহ্মণবাড়িয়া- ৩ এর সংসদ-সদস্য র,অ,ম, উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, ২৫০ কুমিল্লা-২ এর সংসদ-সদস্য সেলিমা আহমাদ, ২৭৩ নোয়াখালী-৬ এর সংসদ-সদস্য আয়েশা ফেরদাউস, ৩১৩ মহিলা আসন-১৩ এর সংসদ-সদস্য শামসুন নাহার, ৩১৪ মহিলা আসন-১৪ এর সংসদ-সদস্য রুমানা আলী, ৩৩৯ মহিলা আসন-৩৯ এর সংসদ-সদস্য পারভীন হক সিকদার, ৩৪৪ মহিলা আসন-৪৪ এর সংসদ-সদস্য সালমা ইসলাম, ৩৪৬ মহিলা আসন-৪৬ এর সংসদ-সদস্য নাজমা আকতার এবং ৩৪৭ মহিলা আসন-৪৭ এর সংসদ-সদস্য রওশন আরা মান্নান।

​পররাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, আমরা মুজিববর্ষে এক কোটি গাছ লাগাবো। এসডিজি অনুযায়ি আমাদের ২৫ ভাগ জমিতে গাছ লাগাবো। আমাদের মাত্র ২২.৫ ভাগ জমিতে গাছ রয়েছে। এবার আমরা যে উদ্যোগ নিয়েছি আশা করছি ২০৩০ সালের বহু আগেই তা পূরণ করবো। গাছ হচ্ছে জীবন। গাছ আমাদের অক্সিজেন দেয় এবং কার্ডনডাই অক্সাইড খেয়ে ফেলে। আমরা পৃথিবীর মধ্যে একটি অনুকরণীয় দেশ। কারণ আমাদের রয়েছে বিরাট সুন্দরবন। আমরা যদি সুন্দরবনকে মূল্যায়ন করতে পারতাম তাহলে ক্লাইমেট ফান্ড থেকে আমাদের কয়েকশত বিলিয়ন ডলার আয় হতো। আমাদের সারা সাউথ বেল্টে আমরা বিরাট রকমের বিকায়ন শুরু করেছি। আমরা বিরাট বিকায়ন করছি বনায়নের জন্য। বিভিন্ন দুর্যোগের সময় বাতাস বাধাগ্রস্ত হবে। ফলে আমাদের ক্ষয়ক্ষতি কম হবে। তিনি আরও বলেন, বিশ্বের সস্মানজনক জলবায়ু সম্পন্ন দেশগুলির মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১০ এর মধ্যে। এর কারণ হলো আমাদের জন্যসংখ্যা অনেক বেশি। সমুদ্রের উচ্চতা যদি এক মিটার বাড়ে তাহলে পৃথিবীর প্রায় এক চতুর্থাংশ দেশ পানির নিচে চলে যাবে। তাই আমাদের বেশি করে গাছ লাগানো একান্ত জরুরী।

​বঙ্গবন্ধুর আরাধ্য সাধনা ছিল সবুজ শ্যামল বাংলাদেশকে সত্যিকার অর্থে প্রাকৃতিক বাংলাদেশে চিরন্তন রূপ দিতে। বঙ্গবন্ধু সেটা সমাপ্ত করে যেতে পারেননি। তার সুযোগ্য উত্তরসূরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের পরিবেশকে স্বাস্থ্য সম্মত এবং সবুজায়ন করার জন্য যে এক অসাধারণ কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন তারই অংশ হিসেবে আজকে আমরা বৃক্ষ রোপণ করছি। আমরা আশা করছি সারা পৃথিবীর মধ্যে বাংলাদেশ হবে গ্রীণ বাংলাদেশ, পরিবেশের বাংলাদেশ, আধুনিক মানসম্মত বাংলাদেশ। সে লক্ষ্যেই আমরা অন্যান্য উন্নয়নের কাজ করে যাচ্ছি।

​পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ি পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় কর্তৃক ১০ দক্ষ বৃক্ষ রোপণ করছি। বর্তমানে বনায়ন রয়েছে ১৭% । মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা হলো এটাকে ২৫% এ উন্নীত করতে হবে। সবুজ বেষ্টনি করতে হবে। যাতে করে জলবায়ু পরিবর্তনে আমাদের উপর যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে সেটাকে নিরসনকল্পে বনায়ন খুবই জরুরী। আমি দেশবাসিকে অনুরোধ করবো যাতে আপনারা বাড়ির পাশে অথবা যেখানে খালি জায়গা রয়েছে সেখানে বেশি করে গাছ লাগাবেন। আসুন আমরা সবাই বেশি করে গাছ লাগাই এবং পরিবেশ রক্ষা করি।

​পরিবশে, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী বলেন, বৃক্ষ রোপণ আমাদের সবুজ শ্যামল বাংলাদেশের চিরাচরিত নিয়ম। কিন্তু এবারের বৃক্ষ রোপণের ভূমিকা একটু অন্যরকম। কারণ এই বছরটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এ উপলক্ষ্যে হয়ত আমাদের অনেক প্রোগ্রাম ছিল কিন্তু কোভিড-১৯ সেই প্রোগ্রামের ভাগ্য বদলে দিয়েছে। কিন্তু তাই বলে ব্ক্ষৃ রোপণ থেকে নেই। কারণ আমাদের পরিবশে রক্ষার্থে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের আজকের যে অবস্থান সেই অবস্থানের এর কোন বিকল্প নেই। আামি এই মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মী হিসেবে একটি নিম গাছের চারা লাগালাম। আমি পরিবেশ রক্ষার দায়িত্বও কিছুটা পালন করছি। নিম গাছের ফলগুলো যখন পাকে তখন ছোট ছোট পাখিরা ফলগুলো খায়। আমাদের গ্রাম বাংলায় কমিউনিটি ক্লিনিক যে ভূমিকা পালন এই নিম ফলও পাখিদের কমিউনিটি ক্লিনিকের কাজ সম্পাদন করে থাকে।

​মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৩৫০ থেকে ৫০০ টি বৃক্ষের চারা রোপনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সংসদ ভবন চত্বরে গত ২৬ জুলাই তারিখে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি। পর্যায়ক্রমে সকল সংসদ-সদস্যবৃন্দ সংসদ ভবন চত্বরে বৃক্ষরোপন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবেন মর্মে সিদ্ধান্ত রয়েছে।

​উল্লেখ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী- ২০২০ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত সারাদেশে এক কোটি বৃক্ষের চারা রোপন কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে এ কার্যক্রম পরিচালিতি হচ্ছে।

​বৃক্ষরোপন কর্মসূচিতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয় ও পিডবিøউডি’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা/কর্মচারিবৃন্দ উপস্থি ছিলেন।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

এপ্রিল ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« মার্চ    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।