• ঢাকা
  • রবিবার, ১লা বৈশাখ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ১৪ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং
আমের পুষ্টি ও ঔষধী গুণাবলি

চলছে আমের মৌসুম। আমাদের দেশে অতি জনপ্রিয় ফল হচ্ছে আম। বাংলাদেশে প্রায় সব জায়গায় আমের চাষ হয়। আসুন আমরা জেনে নেই ফলের রাজা আমের ঔষধি অসাধারণ গুনাবলী।
পূষ্টি তথ্য:
প্রতি এককাপ আমে (২২৫ গ্রাম) ১০৫ ক্যালরি রয়েছে। এছাড়াও ৭৫ শতাংশ এ্যান্টিআক্সিডেন্ট সম্বৃদ্ধ ও রোগ প্রতিরোধী ভিটামিন সি এবং ২৫ শতাংশ ভিটামিন এ। ১১ শতাংশ ভিটামিন বি সিক্স ও ভিটামিন বি যা আপনার মস্তিস্কে হরমোন বৃদ্ধি করবে এবং হৃদরোগ কমাতে সহায়তা করে। আছে ৯ শতাংশ প্রবায়োটিক ফাইবার। আরো আছে ৭ শতাংশ কপার, যা রক্তে লোহিত কনিকার উৎপাদন বাড়ায় এবং আমে থাকা পটাশিয়াম ও ম্যাগনেশিয়াম আমাদের শরীরের জন্য উপকারী।

ক্যানসার প্রতিরোধী:
আমে রয়েছে ক্যুয়েরসেটিন, আইসোক্যুয়েরসেটিন, অ্যসট্রাগালিন, ফিসেটিন, গ্যালিক এসিড ও মিথাইলগ্যালেট সম্বৃদ্ধ এ্যান্টিআক্সিডেন্ট থাকার কারণে ক্যানসারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সক্ষম। বিশেষত কোলন, ব্রেস্ট ক্যানসা্‌র, লিউকেমিয়া ও প্রস্টেট ক্যানসারের বিরুদ্ধে আম বেশ কার্যকরী।

কোলস্টেরল কমাতে সাহায্য করে:
আমে আছে উচ্চমাত্রার ভিটামিন সি, পেকটি্‌ন ও ফাইবার বা আশঁ। এই উপাদানগুলো আমাদের রক্তে কোলস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া পটাশিয়াম আমাদের হৃদপিন্ডের স্পন্ধন ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে সহায়ক।

ত্বক পরিষ্কারক:
পাকা আম ত্বক পরিষ্কার  করে। মুখে ব্রনের কারণে সৃষ্টি গর্ত ঠিক করতে পাকা আম কার্যকর। আম পাতলা করে কেটে ১৫/২০ মিনিট মুখে মেখে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি পাবে এবং মুখের গর্ত ভরাটে সহায়তা করবে।

দেহে ক্ষারীয় উপাদানের সরবরাহ:
আমে রয়েছে টারটারিক এসিড ও ম্যালিক এসিড। এই উপাদান সমূহ প্রাথমিক ভাবে আমাদের দেহে ক্ষারের পরিমান নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

ওজন কমাতে সাহায্য করে:
আমে রয়েছে বিভিন্ন উপকারী ভিটামিন ও অন্যান্য পূষ্টিগুন সম্বৃদ্ধ যা ওজন কমাতেও সহায়তা করে। উচ্চ আঁশ সম্বৃদ্ধ আম হজম শক্তি বাড়ায় এবং অতিরিক্ত ক্যালরি পুড়িয়ে ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ডায়বেটিক নিয়ন্ত্রণ:
আমের পাতা হালকা সিদ্ধ করে সারারাত রেখে দিয়ে সকালে সেই পানি পান করলে ডায়বেটিক নিয়ন্ত্রনে সাহায্য করে। আম লো গ্লাইসেমিক সম্বৃদ্ধ (৪১-৬০),তাই ডায়বেটিক রোগীরা আম খেলেও খুব বেশী ব্লাড সুগার বাড়ার আশংকা কম।

চোখের যত্নে:
আমে রয়েছে অনেক ভিটামিন এ যা  আমাদের দৃষ্টিশক্তি ভাল করতে সাহায্য করে। এছাড়াও আম রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে।

হজমে সহায়ক:
আমের উচ্চগুণ সম্পন্ন ভিটামিন ও প্রি-বায়োটিক ডায়েটারি ফাইবার আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি করে।

হিট স্ট্রোক থেকে রক্ষা করে:
প্রচণ্ড গরমে আমের রস আপনার দেহ কে দ্রুত ঠাণ্ড করে এবং হিট স্ট্রোক থেকে রক্ষা করে।

দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে:
আমের ভেতরে থাকা আসাধারণ পূষ্টিগুণ সম্পন্ন ভিটামিন সমূহ এবং এ্যান্টিআক্সিডেন্ট আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

স্মৃতি শক্তি এবং মনোযোগ বৃদ্ধি করে:
আমে রয়েছে গ্লুটামিন এসিড যা মানুষের স্মৃতি শক্তি এবং মনোযোগ বৃদ্ধি করে। ছোট শিশুদের কে নিয়মিত আম খাওয়ালে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

কিডনী পাথরের বিরুদ্ধে কার্যকর:
চাইনিজ সনাতন চিকিৎসায় আমকে কিডনী পাথর দূরীকরণে ব্যবহার করা হয়। আমের টক-মিষ্টি স্বাদ এবং দেহকে ঠাণ্ডা রাখার ক্ষমতার কারণে এটা কিডনীতে পাথর হওয়া রোধ করে।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

এপ্রিল ২০২৪
শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
« মার্চ    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।