• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ ইং
Mujib Borsho
Mujib Borsho
ভাঙ্গায় হত্যা মামলার আসামীরা জামিনে এসে বাদীর বাড়ীতে হামলার অভিযোগ

ভাঙ্গা প্রতিনিধি-১৫/০২/২০২১

ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলার দক্ষিন কালামৃধা গ্রামে লাল মিয়া হাওলাদার হত্যা মামলার আসামীরা সম্প্রতি জামিনে এসে মামলার বাদী মেহেদী হাওলাদারের বাড়ীতে হামলার অভিযোগ উঠেছে।

গত শনিবার গভীর রাতে আসামীরা সংঙ্গবদ্ধ হয়ে মামলার বাদী মেহেদী হাওলাদারের বাড়ীতে অর্তকিত হামলা চালায়। এসময় হামলাকারিরা বেশ কয়েকটি হাত বোমা বিস্ফোরন সহ দুইটি ঘরের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে।

মামলার বাদী মেহেদী হাওলাদার জানায়, গত ৩১শে ডিসেম্বর-২০২০ সালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার পিতা লালা মিয়া হাওলাদারকে পিটিয়ে হত্যা করে কয়েকজন। সেসময় আমি ভাঙ্গা থানায় বাদী হয়ে সুজন হাওলাদার ও আমির মেম্বার সহ ৯ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করি। মামলা দায়ের পর দীর্ঘদিন আসামীরা পলাতক থাকলেও গত বৃহস্পতিবার তারা জামিনে আসে। জামিনে এসেই তারা আমাকে সহ আমাদের পরিবারের সদস্যদের মামলা তুলে নিতে হুমকি দায়ের করে।

একই সাথে তারা তাদের জামিন পেতে আদালতে ১৩ লাখ টাকা খরচ হয়েছে বলে দাবি করে এবং সেই টাকা আমাদের দিতে বলে। বিষয়টি নিয়ে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছিলাম। এরই মাঝে তারা আমাদের বাড়ী হামলা চালায় এবং আমাদের বিভিন্ন মামলা দিয়ে দেশ ছেড়ে পালানোর হুমকি দেয়। ঘটনার পর আমি থানায় ফোন করলে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেন। এব্যাপারে আমরা একটি অভিযোগ থানায় দায়ের করি। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমি ও আমার পরিবার এখন প্রতিটা মুর্হুত আতংঙ্কে দিন কাটাচ্ছি। বাড়ী থেকে কেউই বের হতে পারছিনা। রাতে প্রানের ভয়ে নিকট আত্মীয় স্বজনের বাড়ীতে গিয়ে থাকি। রাষ্ট্রের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের কাছে দাবি অনতিবিলম্বে আমাদের পরিবারকে নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহন করা হউক।

ঘটনার প্রত্যক্ষ সাক্ষি মামলার বাদী মেহেদী হাওলাদারের চাচা কোহেল হাওলাদার জানায়, কালামৃধা বাজারে দোকান ঘরের ভাড়াটিয়া নিয়ে একটি মারামারির ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার ভাই লাল মিয়া হাওলাদারকে পিটিয়ে হত্যা করে কয়েকজন। বিচারের আশায় আমরা থানায় মামলা করি। মামলা করাতে এখন উল্টো আমাদেরই গ্রাম ছাড়ার উপায় হয়েছে। আমি বৃদ্ধ মানুষ সরকারের কাছে আমি এই হত্যা কান্ডের বিচার চাই।

অপরদিকে মামলার আসামী সুজন হাওলাদারের বাড়ীতে রোববার গভীর রাতে রান্না ঘরে আগুনের ঘটনা ঘটে। মামলার প্রধান আসামী সুজনের আত্মীয় সোনিয়া বেগম জানায়, আমি আমার সন্তানকে নিয়ে ঘরের মধ্যে ঘুমিয়ে ছিলাম। হঠাৎ আমাদের বাড়ীতে আগুন দেখে চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এসে আমাদের রান্না ঘরের আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। উক্ত ঘটনা হত্যা মামলার বাদী পক্ষের যে কেউ করে থাকতে পারে। বিষয়টি নিয়ে সুজন হাওলাদার বলেন, আমার বাড়ীতে আগুন দিয়েছে আমাদের প্রতিপক্ষ। আমি বিষয়টি নিয়ে সোমবার থানায় একটি অভিযোগ করেছি। পরিস্থিতি ঘোলাটে করতেই মামলার বাদী পক্ষ বিভিন্ন ধরনের কারসাজি করছে।

বিষয়টি নিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক আজাদ জানায়, দুটি বিষয় নিয়েই আমরা একটা ধ্রুম জালের মাঝে আছি। অচিরেই তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

ফেসবুকে লাইক দিন

তারিখ অনুযায়ী খবর

ডিসেম্বর ২০২২
শনিরবিসোমমঙ্গলবুধবৃহশুক্র
« নভেম্বর  
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১ 
দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।